You are currently viewing Narayana Institute of Cardiac Sciences for Bangladeshi

 

Specialist Doctors BD খুব সহজে কিভাবে ইন্ডিয়ার Narayana Institute of Cardiac Sciences এ যাওয়ার সকল তথ্য দেয়ার চেষ্টা করেছে । যদি কোন প্রশ্ন থাকে তাহলে অবশ্যই কমেন্টে জানাবেন –




Narayana Institute of Cardiac Sciences for Bangladeshi
বাংলাদেশীদের জন্য নারায়াণা হার্ট ইন্সিটিউট 

বাংলাদেশর সকল রোগী এবং তাদের আত্মীয়দের সমস্তরকম সুবিধা যেমন – ডাক্তারের সঙ্গে অ্যাপয়েন্টমেন্ট, কতটা খরচ হতে পারে চিকিৎসার জন্যে তার সম্বন্ধে ধারণা দেওয়া, ভিসা সংক্রান্ত ব্যাপারে সাহায্য করা হয়ে থাকে। আপনি নিজেই সকল তথ্য নিতে কল করুন –

ডাঃ দেবী প্রসাদ শেঠির অ্যাপয়েন্টমেন্ট সম্বন্ধে অনুসন্ধানের জন্যে মেইল করুনঃ info.international@nhhospitals.org

*** ফর্মটি পূরণ না করতে পারলে আমাদের Facebook Page এ মেসেজ পাঠান । আমরাই সব করে দেব । আমাদের ফেসবুক পেজের লিঙ্ক – www.facebook.com/specialistdoctorsbd

 

মেইলের মাধ্যমে যোগাযোগ –

চিকিৎসা সম্বন্ধে জানতে – info.international@narayanahealth.org
অ্যাপয়েন্টমেন্ট  – enquiry.international@narayanahealth.org

 

*** যে বা যারা বাচ্চা নিয়ে যাবেন তারা বাংলাদেশি ডাক্তারের কাছ থেকে অবশ্যই নিচের ফর্ম পূরন করে নিয়ে সাথে রাখবেন। প্লেনে উঠার আগে লাগতে পারে।

 

Date:

To Whom So Ever It May Concern

 

This is to certify that Mr. / Mrs. / Master / Miss ………………… , Holding Bangladeshi Passport No. …………. and valid Indian Visa No. …………… Is fit to travel by air.

 

He/She is not suffering from any contagious disease.

 

______________

Doctor Name:
Degree:
Registration no:



যারা বাংলাদেশ থেকে এই মুহুর্তে ইন্ডিয়া যেতে চাচ্ছেন তাদের জন্য –

১। ধরে নিচ্ছি আপনি মেডিকেল ভিসায় যাবেন। তো এখন ভারতীয় হাইকমিশনে মেইল করে অনুমতির ব্যাপার নেই আর সারা দেশের ভিসা সেন্টারগুলোও খোলা আছে। সুতরাং প্রয়োজনীয় ডকুমেন্টস দিয়ে ভিসার আবেদন করে ফেলুন।

২। ফাইল জমা দেয়ার কয়েকদিন পরে একটা SMS পাবেন। এই SMS পাওয়ার পরেই আপনি পাসপোর্ট আনতে যেতে পারেন। আপনাকে দেয়া স্লিপে লেখা ডেট যাই হোক না কেন, সমস্যা নেই। এই SMS পাওয়া মানে কিন্তু ভিসা পাওয়া না- আপনি ভিসা পেয়েছেন কিনা সেটা পাসপোর্ট হাতে পাওয়ার আগে বলা সম্ভব না।

৩। ধরে নিই আপনি ভিসা পেয়ে গেছেন। এখন আপনাকে কোভিড-১৯ টেস্ট করাতে হবে। মনে রাখবেন স্যাম্পল দেয়ার ৭২ ঘন্টার মধ্যেই আপনাকে ইমিগ্রেশন পার হতে হবে। অনেকে মনে করেন রিপোর্ট হাতে পাওয়ার পরে ৭২ ঘন্টা গোনা শুরু হয়- এটা ভুল। রিপোর্টে আপনার পাসপোর্ট নাম্বার আর QR কোড অবশ্যই থাকতে হবে। এই দুইটা না থাকলে সেই রিপোর্ট ভ্যালিড নয়। কোভিড রিপোর্ট নেগেটিভ হলেই কেবলমাত্র আপনি ইন্ডিয়া যেতে পারবেন।

৪। কোভিড নেগেটিভ রিপোর্ট পেয়ে গেছেন? তাহলে হ্যাপি জার্নি। এখন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অনুমতির ব্যাপার নেই। রিপোর্টের ৪টা কপি সাথে নেবেন আর রওনা দেবেন। দুই দেশের ইমিগ্রেশন ওই রিপোর্ট দেখতে চাইবে।

৫। আশাকরি এরপর আপনি ইন্ডিয়াতে থাকবেন। মনের মত ট্রিটমেন্ট করান। ভিসাতে যে হাসপাতালের নাম লেখা আছে সেখানেই যে ট্রিটমেন্ট করাতে হবে এমনটা কথা নেই। আপনার ইচ্ছামত আপনি ট্রিটমেন্টের কাজ সেরে ফেলুন। তবে ঘোরাঘুরির সয় সামাজিক দূরত্ব মেনে চলবেন আর  অবশ্যই মাস্ক পরবেন। মনে রাখবেন ইন্ডিয়ার করোনা পরিস্থিতি কিন্তু খুব একটা ভালো নয়।

৬। ট্রিটমেন্ট শেষ? এবার বাড়ী ফিরতে চান? এখন আপনার বাংলাদেশের ভিসা লাগবে। হ্যা- ভুল পড়েন নি। এখন আপনার লাগবে বাংলাদেশের ভিসা। আসার জন্য কোন অনুমতি লাগেনি কিন্তু নিজের দেশে ফেরত যেতে আপনার এখন এক বিশেষ অনুমতির দরকার হবে যার নাম NOC- যেটা বাংলাদেশ হাইকমিশন থেকে নিতে হবে।

৭। হাইকমিশনের একটা ফরম আছে। সেটা আপনাকে পূরণ করতে হবে। একটা ফরমে আপনি ৪ জনের তথ্য পূরণ করতে পারবেন। সেখানে আপনার নাম, পাসপোর্ট নাম্বার ইত্যাদি লিখবেন। সাথে পাসপোর্ট, ভিসা আর ইমিগ্রেশনের সিলের পাতার ফটোকপি দেবেন। এর সাথে কিছু মেডিকেল ডকুমেন্টস-এর ফটোকপি দিয়ে জমা দেবেন।

৮। মনে রাখবেন বাংলাদেশ হাইকমিশন খোলা থাকবে সকাল সাড়ে নয়টা থেকে সাড়ে বারোটা পর্যন্ত। শনি এবং রবিবার বন্ধ। ফরম পূরণ করে জমা দিলে তারা আপনাকে একটা স্লিপ দেবে সেখানে একটা তারিখ উল্লেখ থাকবে। নরমালি ৫-৭ দিন পরের একটা ডেট দেবে। সেইদিন গিয়ে স্লিপ দেখিয়ে NOC সংগ্রহ করবেন। তবে গেদে বর্ডার দিয়ে ঢুকতে চাইলে এক বা দুইদিনের মধ্যে NOC পাবেন। আর আগরতলা দিয়ে ঢুকতে চাইলে কলকাতা থেকে NOC নেয়ার প্রয়োজন নেই- সোজা আগরতলা চলে যান। সেখান থেকে NOC পেয়ে যাবেন সহজেই। ২ ঘন্টার মধ্যেই।

৯। NOC পাওয়ার পর কোভিড টেস্ট করতে হবে । RT-PCR করাবেন আর রিপোর্টে যেন QR কোড থাকে। রিপোর্ট নিয়ে দেশের দিকে রওনা দেন বিসমিল্লাহ বলে। অবশ্যই NOC আর রিপোর্ট চার কপি করে ফটোকপি রাখবেন।

১০। দেশে থাকতে দুই ডোজ টিকা দেয়া থাকলে ভাল। আর না থাকলে ১৪ দিনের জন্য দেশে কোয়ারেন্টাইনে থাকতে হবে। আর ক্যান্সার এবং কিডনী পেশেন্টদের জন্য টিকা দেয়া না থাকলেও হোম কোয়ারেন্টাইন। হোটেলে থাকলে আপনি যে হোটেলে থাকতে চান তার মোট ভাড়ার অর্ধেক সরকার দেবে। আবার সরকারী ব্যবস্থায়ও থাকতে এবং খেতে পারবেন। সেটা ফ্রি।





You may also need in Bangladesh –

 

All Doctors in Dhaka

All Doctors in Khulna

All Doctors in Sylhet

All Doctors in Mymensingh

All Doctors in Barishal

All Doctors in Chottogram

All Doctors in Rajshahi

All Doctors in Rangpur

 



This Post Has 2 Comments

  1. Shudhangsu

    How can i go for treatment in this COVID-19 situation, But I need to go urgently, My present is suffering from breast cancer, boarder is close, even I don’t have visa , So can you manage everything so that i can go for treatment, Please if you have the scope to do something for me ,please do for me

    1. admin

      May be after 08 August, 2020 Indian government will permit some emergency medical visa like yours. So, be patient and contact regularly with visa office. In this situation we are totally helpless.

Comments are closed.