করোনা ভাইরাস : যেসব ভুয়া স্বাস্থ্য পরামর্শ এড়িয়ে চলবেন

 

গত বছরের শেষ সময়ে, অর্থাৎ ২০১৯ সালের নভেম্বর মাসে চীনে প্রথম করোনা ভাইরাস ধরা পড়ে। প্রায় এক বসর পার হয়ে গেলেও এখনো করোনা ভাইরাস নিয়ে আমাদের মাঝে অনেক ভুয়া স্বাস্থ্য পরামর্শ প্রচলিত আছে । ইন্টারনেটে ছড়িয়ে আছে হাজার হাজার ভুল তথ্য ও মিথ্যা স্বাস্থ্য পরামর্শ । অনেকেই না জেনে সেসব ভুল ও ভুয়া স্বাস্থ্য পরামর্শ মেনে চলার ফলে নিজেরা যেমন স্বাস্থ্য ঝুকিতে পড়ছেন সাথে অন্যদের মাঝে আতংক ছড়িয়ে দিচ্ছেন । যেসকল ভুল আমরা এখনো মেনে চলছি সেগুলো আজ তুলে ধরা হল –

১। ১০ সেকেন্ডেই করোনা টেস্ট একটি গুজবঃ 

অনেকেই বলেন আপনি যদি ১০ সেকেন্ড আপনার শ্বাস-প্রশ্বাস ধরে রাখতে পারেন, তাহলে নিশ্চিত আপনি সুস্থ আছেন । এটি সমপুর্ন একটি ভ্রান্ত ধারনা । এটি ইন্টারনেটে ছড়িয়ে পড়া একটি গুজব ।
সব সময় মনে রাখতে হবে যে, করোনার ভাইরাসের সবচেয়ে কমন যে লক্ষন সেটি হল – জ্বর আসা এবং প্রতিনিয়ত শুকনা কাশি হওয়া।

২। আইসক্রিম বা ঠাণ্ডা খাবার করোনার উৎসঃ

আইসক্রিম বা যে কোন ঠাণ্ডা খাবার না খাওয়া। এটা সত্য যে অনেকের ঠাণ্ডা খাবার খেলে টনসিলের বা শরীরের অন্য কোন সমস্যা দেখা দেয়। কিন্তু আইসক্রিম বা ঠাণ্ডা খাবার খেলে করোনা ভাইরাস সংক্রমিত হবে এটি ১০০% ভুল ধারনা । সুধু তাই নয়, শরীর গরম করে রাখা বা অনেক গরম পরিবেশে থাকলেও করোনা সংক্রমিত হতে পারে। যদিও গরমে সাধারন ফ্লু ভাইরাস বেশিক্ষণ বাচে না । কিন্তু করোনা ভাইরাসের তাপমাত্রার সাথে সংক্রমণের সম্পর্ক আজো অজানা ।

৩। রসুন করোনা ভাইরাস প্রতিরোধ করেঃ

ইন্টারনেটে রসুন নিয়ে বহুল প্রচলিত একটি মিথ্যা অনেকেই জেনেছেন, আর সেটি হল রসুন করোনা ভাইরাস প্রতিরোধ করে । কোন সন্দেহ নাই যে রসুনের অনেক ঔষধি গুণ রয়েছে । রসুন খেলে উচ্চ রক্তচাপ (হাই ব্লাড প্রেসার) কমে কিন্তু তা করোনা ভাইরাস থেকে কোনভাবেই  আমাদের রক্ষা করতে পারে না ।

৪। গরম পানি পান করোনা ভাইরাস প্রতিরোধ করেঃ

অনেকেই বলেন প্রতি ১৫- ২০ মিনিট পর পর গরম পানি পান করলে করোনা ভাইরাস থেকে মুক্তি পাওয়া যায় । গরম পানি ভাইরাসকে মেরে ফেলে, আর মারতে না পারলেও তা গলায় বেঁধে থাকা করোনা ভাইরাস কে পেটের ভিতর নিয়ে যায়। তারপর ভাইরাস হজম হয়ে যায়। কোন সন্দেহ নেই যে,ঠাণ্ডা পানি পান করার চেয়ে হালকা গরম পানি পান করা শরীরের জন্য ভাল কিন্তু তা ভাইরাসকে মেরে ফেলে বা গলা থেকে পেটে নিয়ে যায় এবং করোনা থেকে মুক্তি দেয় – এটি একটি ভ্রান্ত ধারনা ও ভুয়া স্বাস্থ্য পরামর্শ ।
ভুয়া স্বাস্থ্য পরামর্শ


৫। গরুর মূত্র পানে করোনা মুক্তিঃ

ইন্ডিয়ান হিন্দুদের ভিতর প্রচলিত আছে যে গরুর মূত্র করোনা ভাইরাস ও অন্যান্য রোগ  থেকে মানুষকে রক্ষা করতে পারে । কিন্তু বিশেষজ্ঞরা বলছেন ধারোনাটা সমপুর্ন মিথ্যা এবং এটি একটি কুসংস্কার। গরুর মূত্র পানে করোনা থেকে মুক্তি পাওয়ার কোন প্রমান নেই । এটি একটি ভ্রান্ত ধারোনাই নয়, এটি মানুষের সাথে প্রতারনা করা।

৬। কঠিন সার্ফেসে ১ মাস বেচে থাকাঃ

অনেকের ধারোনা করোনা ভাইরাস যে কোন কঠিন সার্ফেসে ১ মাসও বেচে থাকে । এটি সম্পুর্ন ভুল ।  সকল গবেষণা এবং রিসার্স থেকে প্রমানিত করোনা ভাইরাস কঠিন সার্ফেস যেমন প্লাস্টিক বা গ্লাসের উপর ২ ঘন্টা থেকে সর্বোচ্চ ৯ দিন পর্যন্ত কার্যকারী থাকে।

৭। বেশি বেশি মদ খাওয়া এবং হাত ধোয়াঃ

অনেকেই মত মদ দিয়ে হাত পরিষ্কার করছেন এবং বেশি বেশি খাওয়া শুরু করেছেন । যাতে ভাইরাস মরে যায় । কিন্তু আমরা যে মদ খাই সেটা ভাইরাস মারার জন্য যথেষ্ট নয়।  ইন্টারনেটে যা দেখবেন তার সব ঠিক না। ইন্টারনেট ব্যবহারে আরো সতর্ক হওয়া উচিৎ।  অনেকেই ইন্টারনেট দেখে হোমমেড স্যানিটাজার ব্যবহার করছেন । মনে রাখবেন যেকোন সার্ফেস যেমন ঘরের মেঝ বা গ্লাস ক্লিনারের মত পদার্থ মানুষের তকের জন্য উপযুক্ত না।

৮। সিলভার পানি পান করাঃ

ইন্টারনেটে সিলভার যুক্ত পানি নিয়ে ইউরোপের দেশগুলোতে বহুল প্রচলিত একটি মিথ্যা অনেকেই জেনেছেন, সিলভার যুক্ত পানি পান করা। এটি করোনা ভাইরাস থেকে আমাদের রক্ষা করতে পারে না বরং তা শরীরের মারাত্মক ক্ষতির কারন হতে পারে। যেমন কিডনি নষ্ট করে ফেলতে পারে, খিচুনি হতে পারে এমনকি আপনার শরীরের চামড়া নীল হয়ে যেতে পারে। এটি একটি ভুয়া স্বাস্থ্য পরামর্শ ।

 

এই সকল মিথ্যা থেকে দূরে থাকুন। ইন্টারনেটে ব্যবহারে সতর্ক হয়ে উঠুন । যেকোন ধরনের পরিস্থিতিতে কখনো সাবান দিয়ে হাত ধুতে বা হাত পরিষ্কার করতে ভুলবেন না। সামাজিক দূরত্ব মেনে চলুন, নিয়ম জেনে মাস্ক ব্যবহার করুন।  মনে রাখবেন, করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে সাবান এবং পানি দিয়ে হাত ধোয়া সবচেয়ে বেশি কার্যকর ।

>> করোনা ভাইরাসের ওষুধ ডেক্সামেথাসোন কি এবং কীভাবে ব্যবহৃত হচ্ছে

specialist doctors BD

 

Leave a Reply

Close Menu